| |

Ad

‘‘নিজের ঘরে শান্তিতে এক রাত ঘুমাবো কল্পনাও করিনি

আপডেটঃ 2:15 pm | November 04, 2019

রফিক বিশ্বাস, তারাকান্দা (ময়মনসিংহ) থেকে ॥ ‘‘নিজের ঘরে শান্তিতে এক রাত ঘুমাবো কল্পনাও করিনি’’ এ কথা গুলি বলেন, ময়মনসিংহের তারাকান্দা উপজেলার কামারগাঁও ইউনিয়নের হরিতলা গ্রামের নিঃসন্তান স্বামী পরিত্যক্তা জামিনা খাতুন (৫০)।

এক সময় স্বামী সংসারে সুখেই ছিলেন জমিনা। সন্তান না হওয়ায় স্বামী অন্যত্র বিয়ে করে চলে যান। নিরুপায় হয়ে বাবার বাড়ীতে ফিরে আসে। পিতা-মাতা মৃত্যুর পর ভাইয়ের সহযোগিতায় রয়ে যান ওই বাড়ীতেই। ভাইয়ের সংসারে থাকার পর দীর্ঘ ২২ বছর এ বাড়ী ওবাড়ীতে রাত কাটাত।

নিজস্ব ঘর না থাকায় অনেক কষ্টে দিনাতিপাত করতো জামিনা খাতুন। স্থানীয় কামারগাঁও ইউনিয়নের সংরক্ষিত ওয়ার্ডে মহিলা সদস্যার মাধ্যমে জানতে পারেন ‘‘জমি আছে ঘর নাই’’ তাদের জন্য শেখ হাসিনার সরকার বিনামূল্যে ঘর নির্মাণ করে দিচ্ছে।

এ খবর পেয়েই জামিনা খাতুন ইউপি সদস্যার সহযোগিতায় তারাকান্দা উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) বরাবরে আবেদন করেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার সারমিন সুলতানা ‘আশ্রয়নে অধিকার, শেখ হাসিনার উপহার’ বাস্তবায়নে ‘‘জমি আছে ঘর নাই’’ প্রকল্পের আওতায় একটি ভিটপাকা টিনের ঘর বরাদ্ধের তালিকা অন্তর্ভূক্ত করেন এবং বাবার ওয়ারিশানসূত্রে প্রাপ্ত ৫ শতাংশ জমিতে ঘর নির্মান করে দেন।
গত রবিবার তারাকান্দা উপজেলা নির্বাহী অফিসার সারমিন সুলতানা উপকারভোগী জামিনা খাতুনের বাড়ীতে নির্মিত ঘর দেখতে যান। সঙ্গে করে নিয়ে যান নিত্য প্রয়োজনীয় খাবার সামগ্রী। চোখের সামনে ইউএনও কে দেখে আত্মহারা হয়ে পড়েন জামিনা খাতুন।

জামিনা খাতুনের যেন স্বপ্নের মতো মনে হয়। জামিনা খাতুন জানান, দীর্ঘ ২২ বছর এবাড়ি ওবাড়ি রাত কাটাত। এখন নিজের ঘর হয়েছে। আমি এ ঘরে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ে মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ইউএনও সারমিন সুলতানার জন্য দোয়া করবো।