| |

Ad

কেন্দুয়ায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে আহত ১৫ জন

আপডেটঃ 6:44 am | October 06, 2019

সাইফুল আলম: নেত্রকোণার কেন্দুয়ায় দোকানের সামনে অটোরিক্সা রাখাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের ঘটনায় উভয় পক্ষে অন্তত ১৫ জনের মত আহত হয়েছে বলে জানা গেছে। এর মধ্যে মারাত্মক আহত ৩ জনকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

তারা হলেন,উপজেলার বলাইশিমুল উইনিয়নের ভরাপাড়া গ্রামের আব্দুল আজিজের ছেলে রিফাত মিয়া (২০),সুজন মিয়ার ছেলে আনোয়ার (২৫) এবং চানফর তালুকদারের ছেলে আব্দুর রাজ্জাক (৫৫)। বাকিরা উপজেলা হাসপাতাল ও স্থানীয় ফার্ম্মেসীতে চিকিৎসা নেন।

এলাকাবাসী ও পুলিশ জানান, বুধবার রাতে কেন্দুয়া-নেত্রকোণা সড়কের ভরাপাড়া বাজারে ভরাপাড়া গ্রােেম ধান ব্যবসায়ী টিটন মিয়ার দোকানের সামনে একই গ্রামের জালাল উদ্দিনের ছেলে অটোচালক বাবুল মিয়া তার অটোরিক্সাটি রাখে।

টিটন মিয়া তার দোকানের সামনে অটোটি না রাখতে বললে এক পর্যায়ে দু’জনের মধ্যে বাগবিন্ডতা শুরু হয়। স্থানীয়রা বিষয়টি থামিয়ে দেন। পরদিন বৃহষ্পতিবার সকালে টিটনের চাচাত ভাই এরশাদ ভরাপাড়া বাজারে এলে বাবুলের ভাই বাদল আবার ঝগড়ায় লিপ্ত হয়।

এসময় উভয় পক্ষে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া শুরু হলে স্থানীয়রা আবারো ঝগড়া থামিয়ে দেন। পরে বিকালে এরশাদের ছোট ভাই রিফাত (২০) ঢাকা থেকে ভোটার হওয়ার জন্য বাড়ী আসার পথে বাবুল বাদল গংদের আত্মীয় আবুল কালামের বাড়ীর সামনে এলে বাদল গংরা রিফাতকে ধারলো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে মারাত্মক আহত করে। খবর পেয়ে উভয় পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্র শস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে ঝাঁপিয়ে পড়ে।

এতে উভয় পক্ষের রিফাত, আনোয়ার,আব্দুর রাজ্জাক, ফাতেমা আক্তার,এখলাস মিয়া, স্বপন মিয়াসহ ১৪/১৫জন আহত হন।খবর পেয়ে পুলিশ এসে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে। কেন্দুয়া থানার ওসি রাশেদুজ্জামান জানান, দোকানের সামনে অটো রাখার তুচ্ছ ঘটনায় এ সংঘর্ষ হয়। পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেয়। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।মামলার প্রস্তুতি চলছে।