| |

Ad

আলোকিত ঈশ্বরগঞ্জ গড়তে কাজ করছে উপজেলা নিবার্হী অফিসার উম্মে রুমানা তুয়া

আপডেটঃ 2:24 pm | August 06, 2019

মতিউর রহমান মতি – ঈশ্বরগঞ্জ প্রতিনিধি ঃ ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার উম্মে রুমানা তুয়া আলোকিত উপজেলা গড়তে রাতদিন অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছে। উপজেলায় যোগদানের পর থেকে মানুষের আপদে-বিপদে জনগণের সেবা করতে দেখা যায়। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে দুর্বার গতিতে। বাংলাদেশে অসহায় নিপিড়িত মানুষ যাতে ঘর ছাড়া না থাকে সেজন্য মানণীয় প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছায় “জমি আছে ঘর নেই” এমন প্রকল্প হাতে নিয়েছে। গৃহহীন মানুষ যাতে ঘরের মধ্যে বসবাস করতে পারে। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলায় ২৬৩টি ঘর নির্মাণের বরাদ্দ দেয়। প্রকৃত গরীব, অসহায় ব্যক্তিরা যাতে সরকার কর্তৃক বিনামূলে ঘর পায় সে জন্য ইউএনও যাচাই করে এমনকি অনেক ক্ষেত্রে নিজে সরেজমিনে গিয়ে যারা পাওয়ার যোগ্য তাদেরকে ঘর বরাদ্ধ দেয়। উম্মে রুমানা তুয়ার এমন কার্যক্রমে প্রকৃত গরীব অসহায় ব্যক্তিরা প্রধানমন্ত্রীর বিনামূল্যে দেওয়া ঘর পাওয়ায় তারা অত্যন্ত আনন্দিত। উপজেলাকে আলোকিত করতে ইউএনও উম্মে রুমানা তুয়া সরকারের বিভিন্ন জাতীয় দিবস অত্যন্ত জাকজমক ও মনোরম পরিবেশের মধ্যদিয়ে উদ্যাপন করছে। যে কোন অনাকাঙ্খিত সমস্যার সংবাদ পাওয়া মাত্রই প্রশাসন ও নিরাপত্তা কর্মী সেখানে তড়িৎ গতিতে পাঠায়। এলাকাবাসী জানান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অনেক প্রতিবন্ধকতা পেরিয়ে উপজেলাকে মাদক, দুর্নীতি ও সন্ত্রাস মুক্ত উপজেলা গড়তে কাজ করছে। আমরা ইতিমধ্যে উপজেলার উন্নয়নের চিত্র দেখতে পাই। উপজেলা প্রশাসন ইউএনও এর দিক নির্দেশনায় সহকারী কমিশনার (ভূমি) তানিয়া মুন, ঈশ্বরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আহম্মেদ কবির হোসেন সহ প্রত্যেক বিভাগের কর্মকর্তা সহযোগিতা করে। বিভিন্ন প্রত্রিকার সাংবাধিক গণ উন্নয়ন মূলক সংবাদ প্রচার করে। শুক্র বার ছুটির দিনেও উপজেলার বিভিন্ন চর অঞ্চলে বন্যায় কবলিতদের পাশে গিয়ে ত্রাণ বিতরণ করেন। ডেঙ্গু রোগ বিষয়ে করণীয়, ছেলে ধরা গুজব প্রতিরোধে ইতিমধ্যে ব্যাপক প্রচার চালায়। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এসেম্বলিতে এরই অংশ হিসেবে প্রায় (২৪) জন কর্মকর্তাকে তদারকির জন্য দায়িত্ব দেয়। সোহাগীর জামেনা খাতুন গৃহহীন থাকায় একটি ঘর নির্মান করে দেন। কয়েকদিন পূর্বে ইউএনও উম্মে রুমানা তুয়া উপজেলার সোহাগীর জামেনা খাতুনের বাড়িতে গিয়ে হাজির হন। বর্ষাকালে সেখানে প্রায় দুই কিলোমিটার পায়ে হেটে তার বাড়ীতে পৌঁছা মাত্রই জামেনা আবেগে আপ্লুত হয়। বয়োজ্যোষ্ঠ বৃদ্ধ মহিলার পাশে বসে ইউএনও উম্মে রুমানা তুয়াকে দেখা যায়। ছবিটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক প্রচার হয়। এতে উপজেলার আপামর জনগন বলেন ইউএনও সত্যিই একজন প্রকৃত সেবা দানকারী কর্মকর্তা। এসময় তার পাশে ছিলেন বহুল প্রচারিত দৈনিক কালের কন্ঠ পত্রিকার আঞ্চলিক প্রতিনিধি আলম ফরাজী এবং দৈনিক প্রথম আলো পত্রিকার নান্দাইল প্রতিনিধি পার্থ, উপজেলা হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। সামাজিক যোগাযোগ (ফেসবুক) এর মাধ্যমে বিভিন্ন সমস্যার সংবাদ প্রকাশিত হলে তিনি তা প্রতিকারের ব্যবস্থান নেন। এমন মানবসেবা দানকারী ইউএনও আমাদের প্রয়োজন। উপজেলা ভবটির দিকে দৃষ্টি ফেললে শুধু ময়লা আর্বজনা নেংরা অবস্থা দেখাযেত। ইউএনও যোগদানের পর থেকে সুন্দর রঙ্গে সঞ্জিত ভবন আর হল রুমটি আধুনিক ডিজিটালাইজড হল রুমে পরিণত হয়েছে। উপজেলা বাসি এমন জনকল্যাণময় কার্যক্রমে খুবই আনন্দিত। এ ব্যাপারে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হেকিম এর কাছে জানতে চাইলে তিনি প্রতিনিধিকে বলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার সরকারের দেয়া বরাদ্দ, বিভিন্ন প্রকল্প পরিপত্র অনুযায়ী যথাযথ নিয়ম মেনে কাজ করছেন। তিনি অত্যন্ত সৎ দক্ষ-কর্মট হিসেবে উপজেলার সর্বস্থরে উন্নতি করার জন্য কাজ করছে। আমাদের সাথে পরামর্শ করে বিভিন্ন সমস্যা সমাধান করার চেষ্টা করে। উপজেলা আওয়ামীলীগ আমরা তাকে সার্বিক ভাবে সহযোগিতা করি। এ ব্যাপারে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা নিবার্হী অফিসার উম্মে রুমানা তুয়া বলেন আমি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করছি। সবাই যার যার অবস্থান থেকে কাজ করলে অতি অল্প সময়ে সারা বাংলাদেশের মধ্যে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা আলোকিত হয়ে উঠবে।