| |

Ad

সানলাইফ ইন্সুরেন্সের মেয়াদপুর্তির টাকা ফেরত পেতে গফরগাওঁয়ের বীমা গ্রহকরা প্রধানমন্ত্রীর স্মরনাপন্ন হবেন

আপডেটঃ 3:12 pm | July 28, 2019

মো: নাজমুল হুদা মানিক ॥ সানলাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানী লিমিটেড এর বীমা গ্রাহকের মেয়াদপুর্তির ১ কোটি ১০ লাখ চৌদ্দ হাজার ৯শত টাকা ফেরত পাওয়ার দাবীতে ২৮ জুলাই সকাল ১১টা থেকে ২টা পর্যন্ত ময়মনসিংহ রিজিওনাল অফিস প্রাঙ্গনে গফরগাঁও উপজেলার বীমা গ্রাহকগন অবস্থান কর্মসুচী পালন করেছে।

বীমার টাকা ফেরত পাওয়ার দাবীতে বীমা গ্রাহকগন সানলাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানী লিমিটেড গনমূখী বীমা প্রকল্পের মূখ্য নির্বাহী পরিচালক বরাবরে অভিযোগ পত্র প্রেরন করেছেন। ভুক্তভোগী বীমা গ্রাহকগন জানান, ২০০৬ সালে প্রধান কার্যালয়ের অনুমতি সাপেক্ষে গফরগাঁও জোনাল অফিসের অনুমোদনের মাধ্যমে গফরগাঁও এর জনগন বিভিন্ন ব্লকে সানলাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানীতে বীমা করে। এই এলাকার গ্রাহকগন তাদের কষ্টে উপার্জিত টাকা গফরগাঁও অফিসে জমা দিয়ে আসছে।

গফরগাঁও এলাকার বীমা গ্রাহকদের বীমার মেয়াদপুর্তি শুরু হয়েছে ২০১৬ সালে। গ্রাহকদের মেয়াদপুর্তি বীমার পাস বই, ময়মনসিংহ বিকেন্দ্রীকরন অফিসে জমা দিয়েছেন। মেয়াদ শেষ হলেও বীমা গ্রহকরা তাদের প্রাপ্য টাকা উত্তোলন করতে পারছেন না। গ্রাহকগন বীমার টাকা উত্তোলন করতে না পেরে মাঠ কর্মীদের উপর চাপ সৃষ্টি করছেন। গ্রাহকদের চাপের কারনে মাঠ কর্মীরা এলাকায় থাকতে পারছেন না। বীমা গ্রাহক ও মাঠকর্মীরা ময়মনসিংহ বিকেন্দ্রিকরন কার্যালয়ে যোগাযোগ করলে অফিস ইনচার্জ এস এম হাসান আলী বলেন, ফান্ড নেই। আমি কিভাবে চেক দিব। যে কর্মীগন বীমা করাইছে তাদের কাছে যান। ময়মনসিংহ অফিস থেকে চেক না দিতে পারায় শত শত বীমা গ্রাহকের পাস বই অফিসে পড়ে রয়েছে।

এ ভাবে মাসের পর মাস, বছরের পর বছর বীমা কর্মী ও গ্রাহকরা হয়রানীর শিকার হচ্ছে। কিছু কিছু গ্রাহক বারবার হয়রানী হয়ে বীমার টাকা না পেয়ে ক্ষুব্ধ হয়ে বীমা কর্মীদের বাড়ীতে গিয়ে হামলা করে। পাশাপাশি বীমা কর্মীদের গালাগাল ও খারাপ আচরন করে। বীমার টাকা না পাওয়ার কারনে অনেকের সংসার ভাঙ্গার উপক্রম হয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে গফরগাঁও উপজেলার বীমা গ্রাহকদের মেয়াদপুর্তির টাকা দ্রুত ফেরত পাওয়ার জন্য বীমাকর্মী ও গ্রাহকগন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন। বীমা গ্রাকগন জানান, কয়েক দিনের মধ্যে গফরগাঁও উপজেলার বীমা গ্রাহকদের বীমার চেক দেয়ার ব্যবস্থা না করা হলে বীমাকর্মী ও গ্রাহকগন আইনের আশ্রয় গ্রহন করতে বাধ্য হবে। পাশাপাশি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর স্মরনাপন্ন হবেন।

গফরগাঁও এলাকার মো: মাহবুব আলম, মো: রাসেল, ফরিদা খাতুন, হাসান মাহমুদ ওয়াসিক, কুলছুম, মোমেনা, মাজেদা, লতিফা, বদরুন নাহার, রুবি আক্তার, রুমা, মো: রহমত আলী, মো: মুরশেদুজ্জামান, আনোয়ারা বেগম, মো: কায়সার রানা, বিলকিছ আক্তার, রাবিয়া সুলতানা, আলমগীর, মশিউর, মো: খোরশেদ আলম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। গফরগাওঁয়ের বীমা গ্রাহকরা পরে ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুলের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন।

তারা বীমা দাবীর টাকা ফেরত পেতে জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদকের সার্বিক সহায়তা কামনা করেন। জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল গফরগাঁওবাসীদের উন্নয়নে সকল কাজে সার্বিক সহায়তা করার আস্বাস প্রদান করেন। তিনি বলেন, বীমা গ্রাহকরা যাতে হয়রানীর স্বীকার না হয় ও বীমার টাকার টাকা ফেরত পায় সে ব্যাপাওে তিনি যথাযত কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা ও পদক্ষেপ গ্রহন করবেন।