| |

Ad

ফুলপুর উপজেলার সালেঙ্গা গ্রামে মাছ ধরা নিয়ে দিন দুপুরে পিতা ও পুত্রকে রাস্তায় আটকিয়ে হত্যার চেষ্টা

আপডেটঃ 6:23 am | July 17, 2019


স্টাফ রিপোর্টার ॥ ফুলপুর উপজেলার সালেঙ্গা গ্রামে মাছ ধরা নিয়ে দিনদুপুরে পিতা ও পুত্রকে রাস্তায় আটকিয়ে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে। হামলাকারীদের উপর্যুপুরি হামলায় পিতা ও পুত্র গুরুতর আহত হয়েছে। আহতদের ফুলপুর সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ব্যাপারে রুমেছা খাতুন বাদী হয়ে ফুলপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। অভিযোগে রুমেছা খাতুন জানান, ফুলপুর থানার সালঙ্গা গ্রামের আলাল উদ্দিন, রফিকুল ইসলাম, মতিউর রহমান মতি, লিয়াকত আলী এর সাথে মাছ ধরা নিয়ে মনোমালিন্য চলে আসছিল। ১৫ জুলাই আনুমানিক সকাল ১১টায় আবুল হোসেন এর বাড়ীর পিছনের রাস্তা দিয়ে জমি দেখার জন্য যাওয়ার সময় আমার ছেলে সাইফুল ইসলাম ও আমার স্বামী আ: বারেককে সালঙ্গা গ্রামের আলাল উদ্দিন, রফিকুল ইসলাম, মতিউর রহমান মতি, লিয়াকত আলী সহ বেশ কয়েকজন পুর্ব পরিকল্পিত ভাবে লোহাররড ও লাঠিশোঠা নিয়ে পথ রোধ করে ফেলে। তারা আমার স্বামী ও সন্তানকে অকথ্য ভাষায় গালাগালি দিতে থাকে। আমার ছেলে গালাগালে প্রতিবাদ করায় লিয়াকত আলীর হুকুমে আলাল উদ্দিন তার হাতে থাকা দাও দিয়ে আমার ছেলে সাইফুল ইসলামের মাথায় কুপ দিয়ে খুন করার চেষ্টা করলে সে গুরুতর রক্তাক্ত জখম হয়। এ সময় চিৎকার দিয়ে সাইফুল মাটিতে পরে গেলে রফিকুল ইসলামের বুকের ডান পার্শে কুপদিয়ে মারাক্তক জখম করে। হামলাকারীদের একজন মতিউর রহমান মতি রড দিয়ে ডান চোখের নিচে আঘাত করে রক্তাক্ত জখম করে। এ সময় অন্যান্যরা লাঠিশোঠা দিয়ে এলাপাথারী পিটিয়ে মারাক্তক জখম করে। সাইফুল ইসলামের ডাক চিৎকারে আমি সহ অন্যান্যদের নিয়ে তাকে উদ্বার করি। হামলাকারীরা এসময় দেশীয় অস্ত্র উচিয়ে আমাদের প্রাননাশের হুমকি দিয়ে যায়। এ ব্যাপারে আমি বা আমার পরিবার আইনী পদক্ষেপ নিলে আমাদের হত্যা করে ফেলবে। আমার ছেলে সাইফুল ইসলামকে হামলাকারীদের কাছ থেকে উদ্বার করে ফুলপুর সরকারী হাসপাতালে ভর্তি। আহত সাইফুলের পরিবার বর্তমানে সন্ত্রাসী হামলার ভয়ে প্রান ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। তারা অপরাধীদের দৃষ্টান্ত মুলক শান্তি দাবী করেছেন।