| |

Ad

প্রতিবন্ধীদের সম্পদে পরিণত করুন : রাষ্ট্রপতি

আপডেটঃ 5:54 am | November 20, 2017

ঢাকা প্রতিনিধি : রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ আজ বিভিন্ন সরকারী ও বেসরকারী প্রতিষ্ঠান, নীতি নির্ধারক, উন্নয়ন সহযোগীসহ সকলকে প্রতিবন্ধীদের মানব সম্পদে পরিনত ও আত্মনির্ভরশীল করার সহযোগিতায় এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন।
গতকাল বিকেলে বঙ্গবন্ধু নভোথিয়েটারে এশিয়ান ফেডারেশন অন ইন্টিলেকচুয়াল ডিজএবিলিটি (এএফআইডি)-র ২৩তম সম্মেলন উদ্বোধনকালে তিনি বলেন, ‘এ ব্যাপারে সামাজিক ও রাজনৈতিক অঙ্গীকার অত্যাবশ্যকীয়। যদি আমরা তাদেরকে বিশেষ শিক্ষা, প্রশিক্ষণ এবং স্বাস্থ্য সুবিধা প্রদান করতে পারি, তবে তারাও সক্ষম জনশক্তিতে পরিণত হতে পারে।’
প্রতিবন্ধীরা সমাজের অবিচ্ছেদ্য অংশ উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, তারাও সমাজ এবং পরিবার থেকে বিশেষ যতœ ও মনযোগ পাওয়ার আশা করে।
তিনি বিদ্যমান ব্যবস্থায় প্রতিবন্ধীদের প্রতি বৈষম্য দূর করতে এবং তাদের সমান সহযোগিতা প্রদানে রাষ্ট্রের সকল পর্যায়কে অবিলম্বে বিশেষ মনযোগ প্রদানের ওপর গুরুত্বারোপ করেন।
এ সময় রাষ্ট্রপতি বলেন, প্রখ্যাত সমাজ কর্মী হেলেন কেলার, বিখ্যাত ব্রিটিশ কবি জন মিল্টন এবং শিক্ষাবিদ লুই ব্রেইল অন্ধ ছিলেন, জার্মান বাদ্যযন্ত্র বাদক বিটোফেন বধির ছিলেন, বিখ্যাত ব্রিটিশ বিজ্ঞানী স্টিফেন হকিং প্রতিবন্ধী হওয়ার পরও সমাজে তারা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন।
তিনি এএফআইডি এবং সোসাইডি ফর দ্য ওয়েলফেয়ার অব দ্য ইন্টেলেকচুয়ালি ডিজাবেলড (এসডব্লিউআইডি)-র কার্যক্রমের প্রশংসা করেন। এই প্রতিষ্ঠান দু’টি নিউরো ডেভেলপমেন্ট ডিজাবিলিটিস, ইন্টেলেকচুয়ালি ডিজাবিলিটি, অটিজম, সেরিব্রাল পলসি, ডাউনসিনড্রোম এবং মানসিক অসুস্থতা নিয়ে বহু বছর ধরে কাজ করছে।
প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরা তাদের অবস্থার জন্য দায়ী নয়, তাদের এই অবস্থান প্রকৃতির ইচ্ছাধীন উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি সুনির্দিষ্টভাবে তাদের প্রতিযথাযথ সেবাদানের পাশাপাশি ¯েœহ, ভালোবাসা জানানোর জন্য সকলের প্রতি আহবান জানান। ডিজাবেল শিশুদের বিশেষায়িত প্রশিক্ষণ ও শিক্ষাদানের মাধ্যমে তাদের মানবসম্পদে পরিণত করার আহবান জানান।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিভিন্ন প্রয়োগিক পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে আবদুল হামিদ বলেন, সরকার অন্তর্ভুক্তিমূলক সমাজ গঠনে অঙ্গীকারাবদ্ধ, যেখানে সকলেই তাদের অধিকার এবং যথাযথ সম্মান পাবে।
তিনি বলেন, প্রতিবন্ধীদের দক্ষ জনশক্তি হিসেবে সমাজের মূল ¯্রােতে নিয়ে আসতে বর্তমান সরকার ন্যাশনাল ফাউন্ডেশন ফর দ্য ডেভলপমেন্ট অব ডিজাবেলড (এনএফডিডি) প্রতিষ্ঠা করেছে, আদমশুমারিতে প্রতিবন্ধী ইস্যুসহ প্রতিবন্ধী চিহ্নিতকরণ জরিপ করেছে, ‘প্রতিবন্ধীদের অধিকার সুরক্ষা আইন-২০১৩’ এবং ‘নিউরো-ডেভেলপমেন্টাল ডিজাবিলিটি ট্রাস্ট ফান্ড আইন-২০১৩’ পাস করেছে। বৃত্তি, স্বাস্থ্য সেবা, অবারিত সুযোগ, ক্রীড়া ও পুনর্বাসন কমপ্লেক্স নির্মাণ এবং নানামুখী কার্যক্রম গ্রহণ করেছে।
অটিজমের ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তাঁর কন্যা সায়মা ওয়াজেদের অসামান্য অবদান তুলে ধরে আবদুল হামিদ বলেন, সরকারের উদ্যোগের সাথে তিনি পার্সন উইথ ডিজাবিলিটি (পিডব্লিউডি) বৈশ্বিক পর্যায়ে এগিয়ে নিয়েছেন এবং এটি একটি গর্বের বিষয়।
রাষ্ট্রপতি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) এওয়ার্ড প্রাপ্ত এবং ইউনেস্কো জুরি বোর্ডের সভাপতি সায়মা ওয়াজেদকে ধন্যবাদ জানান।
এএফআইডি সভাপতি জওহারুল ইসলাম মামুনের সভাপতিত্বে এসডব্লিউআইডি ৫ দিনব্যাপী এ সম্মেলনের আয়োজন করে। জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার এম ফজলে রাব্বি মিয়া, সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী এম নূরুজ্জামান আহমেদ, অন্যান্য মন্ত্রী, এমপি, এফআইইডি মহাসচিব ড. উন কুয়াং কিম এবং দেশী-বিদেশী প্রতিনিধি উদ্বোধনী অধিবেশনে যোগ দেন। অনুষ্ঠানে মূল প্রবদ্ধ উপস্থাপন করেন মনসুর আহমেদ চৌধুরী।