| |

Ad

র‌্যাবের অভিযানে জেএমবি সদস্য গ্রেফতার

আপডেটঃ 5:33 am | April 09, 2018

গত ০৭ এপ্রিল ২০১৮ ইং রোজ শনিবার র‌্যাব-১৪ এর একটি আভিযানিক দল গোপন সংবাদের এবং তথ্য প্রযুক্তির সহায়তা নিয়ে নব্য জেএমবি গ্রুপের কয়েকজন সদস্যের অবস্থান সনাক্ত করতে সমর্থ হয়। অতঃপর প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ পূর্বক অভিযান পরিচালনা করে র‌্যাব-১৪ এর একটি আভিযানিক দল ফেনী জেলার সদর থানাধীন লালপোল নামক স্থান হতে নব্য জেএমবি গ্রুপের একজন সদস্য মোঃ রাশেদ উল ইসলাম (২১), পিতা- মোঃ হানিফ মিয়া, সাং- চরকলমি, থানা- কোম্পানীগঞ্জ, জেলা- নোয়াখালী কে গ্রেফতার করে। রাশেদ ফেনীর সোনাগাজী থানাধীন দারুল উলামা মাদ্রাসায় অধ্যয়নরত ছিল। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে রাশেদ জঙ্গিবাদের সাথে তার সংশ্লিষ্টতার কথা স্বীকার করে। মূলত মাদ্রাসার অধ্যয়নরত অবস্থায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আহলে হাদিসদের দাপটের কথা শুনে তাদের বিরোধিতার জন্য রাশেদ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিজেকে সংযুক্ত করে। ধীরে ধীরে বিভিন্ন ইসলামিক পেইজ এবং পত্রপত্রিকার মাধ্যমে বিভিন্ন জঙ্গি গোষ্ঠীর কর্মকান্ড সম্পর্কে অবগত হলে জেএমবি সম্পর্কে বিস্তারিত জানার জন্য রাশেদের মনে আগ্রহের সৃষ্টি হয়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে বিভিন্ন জঙ্গি গোষ্ঠীর কর্মকান্ডের পোস্ট প্রকাশ করলে রাশেদের সাথে বন্ধুত্ব হয় অপর নব্য জেএমবি সদস্য মোঃ ইসমাইল হোসেন এর সাথে। ইসমাইলের মাধ্যমে রাশেদের পরিচয় ঘটে আবু শাম নামক একই গ্রুপের আরেক সদস্যের সাথে। ত্রয়ী খুব অল্প সময়ের মধ্যে জিহাদি প্ররোচনায় এক অপরকে উদ্বুদ্ধ করে তোলে এবং নাশকতা সংঘটনের উদ্দেশ্যে ইসলামের নামে অপব্যাখ্যা দিয়ে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে লোকজনকে দলে টানতে শুরু করে। এই নাশকতার পরিকল্পনা নস্যাৎ করে ইতিমধ্যে র‌্যাব-১৪ বগুড়া থেকে ইসমাইল এবং ময়মনসিংহের ত্রিশাল থেকে আবু শামকে গ্রেফতার করতে সমর্থ হলে রাশেদ তার কার্যক্রমে কিছুটা স্থির হয়ে যায় এবং গা ঢাকা দেয়। র‌্যাব-১৪ রাশেদকে ধরার জন্য ক্রমাগত গোয়েন্দা নজরদারি এবং আভিযানিক কার্যক্রম অব্যাহত রাখে। এই ধারাবাহিক আভিযানিক চেষ্টার সফলতায় র‌্যাব-১৪ এর একটি আভিযানিক দল ব্যাটালিয়ন সদর, ময়মনসিংহ এর অপারেশন অফিসার এএসপি মোঃ হাফিজুল ইসলাম বাবু এর নেতৃত্বে গত ০৭ এপ্রিল ২০১৮ ইং শনিবার রাত ১১:০০ ঘটিকায় ফেনী জেলা থেকে রাশেদকে গ্রেফতার করতে সমর্থ হয়। ধৃত আসামীকে পূর্বের ময়মনসিংহ জেলার ত্রিশাল থানার মামলা নং-০৪, তারিখ ০৩ নভেম্বর ২০১৭ ইং, ধারা- সন্ত্রাস বিরোধী আইন ২০০৯ (সংশোধনী-২০১৩) এর ৮/৯(৩) মূলে হস্তান্তর এর বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি