| |

Ad

গৌরীপুরে স্বামীর গরম পানিতে ঝলসে গেলো স্ত্রীর শরীর \ স্বামী আটক শামীম খান, গৌরীপুর (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি :

আপডেটঃ 6:54 am | February 20, 2018

ময়মনসিংহের গৌরীপুরে স্ত্রীকে মেরে ফেলতে স্বামীর বিরুদ্ধে গরম পানি ছুড়ার অভিযোগ করেন দগ্ধ রীতা চৌহান। জীবন বাঁচাতে নদীতে ঝাঁপ দেন তিনি। উদ্ধার করে সিএনজিতে (অটোরিক্সা) করে হাসপাতালে পাঠায় এলাকাবাসী। ঘটনার ৪দিন অতিবাহিত হলেও স্বামী ও তার পরিবারের লোকজন সোমবার (১৯ ফেব্রæয়ারি/১৮) পর্যন্ত কেউ খোঁজ খবর নেয়নি। হাসপাতালের ফ্লোরে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন রীতা চৌহান।হাসপাতাল সূত্র জানায়, একজন সিএনজি চালক দগ্ধ রীতা চৌহানকে শুক্রবার (১৬ ফেব্রæয়ারি/১৮) রাত সাড়ে ৯টার দিকে হাসপাতালের জরুরী বিভাগে রেখে যান। এরপর তাকে ভর্তি করে হাসপাতালের যেসব ওষুধ আছে-তা দিয়ে চিকিৎসা চলছে। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডা. মো. রবিউল ইসলাম জানান, সোমবার তার শারীরিক অবস্থার অবনতি দেখা দিয়েছে। অভিভাবক না থাকায় অন্যত্র পাঠাতো পারছি না। আমরা সর্বোচ্চ চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছি।
এ প্রতিবেদক ঘটনাটি জানালে হাসপাতালে ছুটে যান উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও নারী উন্নয়ন ফোরামের সভাপতি রাবেয়া ইসলাম ডলি। উপজেলা সমাজসেবা অফিসার মো. ইসতিয়াক আহাম্মেদ সমাজসেবা অধিদপ্তরের রোগী কল্যাণ তহবিল থেকে রোগীর প্রয়োজনীয় ওষুধপত্রের ব্যবস্থা করে দেন। ইউএনও মর্জিনা আক্তার ও গৌরীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ দেলোয়ার আহম্মদ, অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) তারিকুজ্জামান নির্যাতিত নারীর পক্ষে আইনী পদক্ষেপ গ্রহণ করেন।
পূর্বধলা উপজেলার হারধলা গ্রামের মৃত কানাই চৌহানের কন্যা রীতা চৌহান জানায়, প্রেমের সম্পর্ক সূত্র ধরে প্রায় ১৩বছর পূর্বে বোকাইনগর ইউনিয়নের মমিনপুর গ্রামের শ্রীরাম চৌহানের পুত্র রিপন চৌহানের সাথে বিয়ে হয়। এ বিয়ে তার পরিবারের লোকজন ও রিপন চৌহানও মেনে নিতে চায়নি। ভাসুর পল্লাদ চৌহান ও শাশুড়ী কুসুমি চৌহান ষড়যন্ত্র করে আমাকে জোরপূর্বক তাড়িয়ে দিতে চেয়েছিলো। ওরা দু’জন, পল্লাদের স্ত্রী ও তার পুত্র মিলে একাধিকবার নির্যাতন চালিয়েছে। গত শুক্রবার সন্ধ্যার পরে তাকে মেরে ফেলতে তার স্বামী রিপন চৌহান গরম পানি পুরো শরীরে ঢেলে দেয়। এ সময় তার ভাসুর পল্লাদ চৌহান, শাশুড়ী কুসুমী চৌহানও তাকে নির্যাতন চালায়। দগ্ধ শরীরে বাঁচার জন্য বালুয়া নদীতে ঝাঁপ দেই। সেখান থেকে এলাকাবাসী উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়। তার স্ত্রীর অত্যাচার নির্যাতনের বর্ণনা দিতে গিয়ে রিপন চৌহান জানায়, কয়েকদিন পরপরই সে আমাকে ও আমার মাকে শারীরিকভাবে নির্যাতন করে। ওর অত্যাচার-নির্যাতনে আমরা অতিষ্ট। এ নিয়ে অসংখ্যবার সালিশও হয়েছে। রীতা চৌহান অশৃঙ্খল-কারো কথা মানে না। এ প্রসঙ্গে ইউপি মেম্বার আজিজুল হক বলেন, রীতা চৌহানকে সামাজিকভাবে কয়েকদফা দেন-দরবারের করে স্বামী-স্ত্রী ও পরিবারের মাঝে আপোষ করে দেয়া হয়। তবে সে অশৃঙ্খল। এ দিকে রীতা চৌহানের বোন মনি চৌহান জানায়, তার বোনের ওপর বারবারই অত্যাচার-নির্যাতন চালানো হচ্ছে। এ বিষয়ে পল্লাদ চৌহান জানায়, রিপন চৌহান তার ভাই কিন্তু রীতা চৌহান অশালীন আচারণ করায় তাদের সাথে কোন সম্পর্ক নেই। গরম পানি ছুঁড়ে স্ত্রীর শরীর ঝলসে দেয়ার অভিযোগে রিপন চৌহানকে আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেন গৌরীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ দেলোয়ার আহাম্মদ। তিনি জানান, নির্যাতনের শিকার রীতা চৌহানের পরিবারের লোকজনকে খোঁজা হচ্ছে।