| |

Ad

ঝিনাইগাতীতে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অর্ধকোটি টাকা মূল্যের জমি বেদখল উদ্ধারের উদ্যোগ নেই

আপডেটঃ 5:07 am | February 10, 2018

ঝিনাইগাতী (শেরপুর) প্রতিনিধি ॥ উপজেলার রামেরকুড়া মৌজায় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অর্ধকোটি টাকা মূল্যের জমি বেহাত হতে চলেছে। উদ্ধারের উদ্যোগ না থাকায় সরকারি জমি স্থায়ীভাবে বেদখল হওয়ার পাশাপাশি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকান্ড ব্যাহত হওয়ার আসংকা করছেন ওই দপ্তরের কর্মকর্তাগন। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, তাদের ওই জমির উপর একটি পিপি গোডাউন রয়েছে। এক সময় ওই গোডাউনেই কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সকল কর্মকান্ড পরিচালিত হত। পরে উপজেলা পরিষদ ভবনে অফিস স্থানান্তর হলে ঘরটি পিপি গোডাউন হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা কৃষিবিদ আঃ আওয়াল জানান, ২০১৬ সালে জুলাই মাসে স্থানীয় ইউএনও অফিসের কম্পিউটার অপারেটর ইনছান আলী ওই গোডাউনের পাশের ফাঁকা জায়গাতে ঘরবাড়ি নির্মাণ করে জমিটি দখল করে নেন। ওই জমির বর্তমান বাজার মূল্য প্রায় অর্ধকোটি টাকা। তিনি আরও জানান, উক্ত জমি দখল মুক্ত করতে তার পূর্বের কর্মকর্তা কৃষিবিদ কোরবান আলী অধিদপ্তরের স্মারক নং ২৬৯ (৬) তাং ১৮.১০.২০১৬ মূলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর একটি আবেদন করেন। কিন্তু গত ২ বছরেও বেদখলীয় জমি উদ্ধারের উদ্যোগ নেয়া হয়নি। নেয়া হয়নি জমি দখলের অভিযোগে অভিযুক্ত ইউএনও অফিসের ওই কর্মচারীর বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা। উপজেলা চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম বাদশা বলেন, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের ওই জমি উদ্ধার আবেদনের একটি অনুলিপির কপি তাকেও দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, জমিটি ইউএনও অফিসের কম্পিউটার অপারেটর ইনছান আলী দখল করে ঘরবাড়ি নির্মাণের পর ওই বাড়িতে বর্তমানে অন্য একজন বসবাস করে আসছেন। জমিটি উদ্ধারের বিষয়ে আইন শৃংখলা কমিটির সভায় তিনি আলোচনাও করেছেন বলে জানান। ইউএনও অফিসের কর্মচারী ইনছান আলী ওই জমি দখলের সাথে জড়িত নয় বলে জানান। ইউএনও ফারহানা করিম বলেন, ওই জমিতে বর্তমানে যিনি বসবাস করছেন খাস জমি হিসেবে তার নামে বন্দোবস্ত দিতে প্রস্তাব করা হয়েছে।