| |

Ad

জামালপুরে ২৭৮ কমিউনিটি ক্লিনিক বন্ধ, দুর্ভোগে রোগী

আপডেটঃ 7:08 am | February 04, 2018

জামালপুর সংবাদদাতা ॥ কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে চাকরি জাতীয়করণের দাবিতে কমিউনিটি ক্লিনিকে কর্মরত কমিউনিটি হেলথ কেয়ার প্রোভাইডাররা (সিএইচসিপিরা) আন্দোলন করায় টানা ১১দিন ধরে বন্ধ রয়েছে বহুল আলোচিত কমিউনিটি ক্লিনিক। এতে ভেঙে পড়েছে তৃণমূলের স্বাস্থ্যসেবা। বিশেষ করে শিশু ও বয়স্ক মানুষ ঠান্ডাজনিত রোগে চিকিৎসা না পাওয়ায় চরম দুর্ভোগে পড়েছেন। কমিউনিটি ক্লিনিক বন্ধ থাকায় সেবা পেতে তারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ নানা বেসরকারি ক্লিনিকে ছুটছেন। ২০ জানুয়ারি থেকে জামালপুরের ২৭৮টি কমিউনিটি ক্লিনিক বন্ধ রয়েছে বলে জামালপুরের সিভিল সার্জনের অফিস সূত্রে জানা গেছে।এদিকে কমিউনিটি ক্লিনিক বন্ধ থাকায় জেলার প্রায় ২০ লাখ মানুষ সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। বিশেষ করে ইসলামপুর, দেওয়ানগঞ্জ ও বকশীগঞ্জের চরাঞ্চলের মানুষের দুর্ভোগ এখন চরমে।
কমিউনিটি ক্লিনিকে সেবা নিতে আসা রোগী জানান, বেশ কয়েকদিন ধরে কমিউনিটি ক্লিনিক বন্ধ রয়েছে। আমার ছেলের জ্বর হয়েছিল চিকিৎসা না পাওয়ায় এখন নিউমনিয়া হয়ে গেছে। সে কারণে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসেছি ছেলের চিকিৎসা করাতে। কমিউনিটি হেলথ কেয়ার প্রোভাইডারদের অ্যাসোশিয়েশনের সভাপতি ইকবাল মাহামুদ বলেন, চাকরি জাতীয়করণের দাবিতে জামালপুরের সিএইচসিপিরা এখন ঢাকায় অবস্থান করায় সব কমিউনিটি ক্লিনিকগুলো বন্ধ রয়েছে। আমাদের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমরা ঢাকা থেকে বাড়ি ফিরব না।
২৩ ও ২৪ তারিখেও কমিউনিটি ক্লিনিক বন্ধ রেখে জামালপুর সিভিল সার্জনের কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নেন তারা। ২৭ তারিখ থেকে অদ্যবধি জামালপুরের সিএইচসিপিরা ঢাকায় প্রেসক্লাবের সামনে অবস্থান করছেন।কমিউনিটি ক্লিনিকগুলো বন্ধ থাকায় স্বাস্থ্য সেবায় ভোগান্তির শিকার হচ্ছে বিষয়টি স্বীকার করে জামালপুরের সিভিল সার্জন ডা. গৌতম রায় জানান, ভোগান্তি লাঘবে ইউনিয়ন ও উপজেলা পর্যায়ে সব চিকিৎসকদের প্রস্তুুত রাখা হয়েছে।